“বিক্রমপুর মডেল টাউন”

পদ্দাসেতু: স্বপ্নের পদ্মাসেতুকে কেন্দ্র করে ঢাকা মাওয়া রোড ফুটে উঠছে সরকারের বহুমুখী উন্নয়নের চিত্র। ইতিমধ্যে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার স্থানান্তরিত হয়েছে কেরাণীগঞ্জ ঢাকা-মাওয়া রোডের পাশে। তার পাশেই গড়ে উঠবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়েল দ্বিতীয় ক্যাম্পাস। যার জন্য জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে। পদ্মাসেতু বাস্তবায়নের সাথে সাথেই দক্ষিনাঞ্চলকে ঘিরে সরকার সুদুর প্রসারী মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। ইতিমধ্যে পায়রা সমুদ্র বন্দর উদ্বোধন করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। পদ্মার পাড়ে গড়ে উঠছে আন্তর্জাতিক ক্রীড়া কমপ্লেক্স সহ অলিম্পিক ভিলেজ। হংকং ও সিঙ্গাপুরের আদলে গড়ে উঠবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট সিটি। মুন্সিগঞ্জে গড়ে উঠবে আধুনিক শিল্প পল্লী। উন্নত নাগরিক সুবিধা নিয়ে পবিবেশ ও গ্রাহক বান্ধব আবাসন হবে “বিক্রমপুর মডেল টাউন”।

এক্সপ্রেস হাইওয়ে: ঢাকার যাত্রাবাড়ি থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত ৫৫ কি:মি: সড়ক রূপ নিচ্ছে হাইওয়েতে। যার মধ্যে ঢাকা-মাওয়া ৩০ কি:মি: আর জাজিরা থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত ২০ কি:মি: এটি হবে দেশের প্রথম এক্সপ্রেস হাহওয়ে যেখানে মূল সড়কে থাকবে ৪টি লেন। সঙ্গে সড়কের দুই পাশে থাকবে সাড়ে পাঁচ মিটার করে (একেক পাশে দুই লেন) দুটি সার্ভিস লেন। এটি নির্মান সম্পন্ন হওয়ার পর মাত্র ৪০ মিনিটেই পৌঁছে যাবে ঢাকা থেকে ফবিদপুরের ভাঙ্গায়। এটি নির্মানের পর এটাই হবে বাংলাদেশের দ্রুততম সড়কপথ।

পরিবেশ বান্ধব আবাসন | উন্নত সকল নাগরিক সুবিধা | ৪০০ ফুট প্রশস্ত ঢাকা-মাওয়া রোড

কেন্দ্রীয় কারাগার

আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র

আন্তর্জাতিক অলিম্পিক ভিলেজ

দ্বিতীয় বৃহত্তম রেলওয়ে জংশন

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট সিটি

পায়রা সমুদ্রবন্দর

দেশের বৃহত্তম গার্মেন্টস পল্লী